আজ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩০শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

সময় : সকাল ১০:২৪

বার : বুধবার

ঋতু : হেমন্তকাল

‘সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলেও এককভাবে সরকার গঠন করবে না বিএনপি’

জাতীয় নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলেও এককভাবে সরকার গঠন করবে না বিএনপি। দলটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রব্যবস্থা মেরামতের জন্য বিএনপি একটি শক্তিশালী ও প্রকৃত জনপ্রতিনিধিত্বশীল সরকার গঠনের পক্ষের শক্তি তথা গণতন্ত্রের পক্ষের শক্তির জাতীয় ঐক্য জরুরি বলে মনে করে। এজন্যই বিএনপি জাতীয় নির্বাচনে বিজয়ী অথবা বিজিত সকল রাজনৈতিক শক্তিকে নিয়ে একটি ফ্যাসিবাদবিরোধী জাতীয় সরকার গঠন করতে চায়।

বিএনপির মিডিয়া সেলের সৌজন্যে বিভাগীয় শহরগুলোতে আয়োজিত নাগরিক সভায় দলের এ অবস্থান জানানো হচ্ছে। ইতোমধ্যে সিলেট, রংপুরে আয়োজিত নাগরিক সভায় এ অবস্থান তুলে ধরা হয়েছে। একই ধারাবাহিকতায় শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাজশাহীতে আয়োজিত মতবিনিময় সভায়ও এ অবস্থান তুলে ধরে মিডিয়া সেল। এতে স্বাগত বক্তব্য দেন বিএনপির মিডিয়া সেলের আহ্বায়ক জহির উদ্দিন স্বপন। বিএনপির মিডিয়া সেল সূত্রে জানা গেছে, আগামী ১ অক্টোবর ময়মনসিংহে মতবিনিময় সভা হবে। ওই সভায়ও আসন্ন জাতীয় নির্বাচন ও নির্বাচন পরবর্তী রাষ্ট্রগঠন নিয়ে প্রস্তাব তুলে ধরা হবে।

বিএনপি মিডিয়া সেলের আয়োজনে শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকালে রাজশাহী নগরীর একটি হোটেলে ‘জবাবদিহিমূল ‘রাষ্ট্র ব্যাবস্থা গঠনে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন পরবর্তীতে জাতীয় সরকার ও দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট জাতীয় সংসদ অপরিহার্য’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় বিএনপির সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা বলেন, সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধ্বংস করে দলীয়করণ করা হয়েছে। এককক্ষীয় সংসদীয় ব্যবস্থায় ক্ষমতায় আসলেই সংখ্যাগরিষ্ঠ দল স্বৈরাচারী হয়ে ওঠে। তাই আমরা কেবল ক্ষমতার পরিবর্তন হলে মৌলিক পরিবর্তন হবে বলে বিশ্বাস করি না। এর জন্য পুরো রাষ্ট্র ব্যবস্থার মেরামত দরকার। তাই সকল ছোট বড় রাজনৈতিক দলকে সঙ্গে নিয়ে দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট জাতীয় সংসদ গড়ে তুলবো।

‘সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলেও এককভাবে সরকার গঠন করবে না বিএনপি’

তিনি আরও বলেন, বিদ্যমান সংসদীয় ব্যবস্থার পাশাপাশি বিশেষজ্ঞ জ্ঞানের সমন্বয়ে রাষ্ট্র পরিচালনার লক্ষ্যে দেশের প্রথিতযশা শিক্ষাবিদ, পেশাজীবী, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী, সমাজবিজ্ঞানী ও প্রশাসনিক অভিজ্ঞতাসমৃদ্ধ ব্যক্তিদের নিয়ে দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট আইনসভা এখন সময়ের দাবি। পৃথিবীর উন্নত ও অনুসরণযোগ্য অধিকাংশ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রেই দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট আইনসভার প্রচলন রয়েছে। তাই বাংলাদেশে বিশিষ্ট সংসদ গড়ে তোলা জরুরি।

বিএনপির মিডিয়া সেলের সদস্য সচিব শহিদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি উল্লেখ করেন, জনগণের ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করতে হলে বর্তমান রাষ্ট্রব্যবস্থার জরুরি মেরামত প্রয়োজন। আর এই রাষ্ট্রব্যবস্থা মেরামতের জন্যই বিএনপি একটি শক্তিশালী, কার্যকরী রাষ্ট্র ও প্রকৃত জনপ্রতিনিধিত্বশীল সরকার গঠনের পক্ষের শক্তি তথা গণতন্ত্রের পক্ষের শক্তির জাতীয় ঐক্য অতীব জরুরি বলে মনে করে।

সভায় বক্তারা বলেন, পেশাজীবিরা বিএনপিকে টিকিয়ে রেখেছে। রাজনৈতিক নেতারা তাদের ভূমিকা রাখতে ব্যর্থ হয়েছে। বিএনপি নেতারা নিজেদের মধ্যে দলাদলিতে যতটা সময় অপচয় করেছে, সেটা সাংগঠনিকভাবে ব্যয় করলে দলের জন্য আরও ভালো হতো।

বক্তারা আরও বলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সনকে যখন বন্দি করা হচ্ছে, সে সময় আইনজীবীরা লড়ে গেছেন। কিন্তু মাঠে রাজনৈতিক নেতাদের ভূমিকা তেমন ছিল না। রাজনৈতিক নেতাদের মনে রাখতে হবে পেশাজীবিরা রাজনৈতিক পরিবর্তন করতে পারে না। তারা রাজনৈতিক নেতাদের সহযোগিতা করতে পারে।

সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএনপি মিডিয়া সেল আহ্বায়ক জহির উদ্দিন স্বপন। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএনপি মিডিয়া সেল সদস্য সচিব শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি। সমন্বয়কারী ছিলেন অধ্যাপক ডক্টর মোর্শেদ হাসান খান। সভা সঞ্চালনা করেন বিএনপি মিডিয়া সেলের সদস্য আতিকুর রহমান রুমন।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির নেতাকর্মীসহ, সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা, শিক্ষক, চিকিৎসক, আইনজীবী ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category