আজ ৬ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সময় : বিকাল ৫:৪৩

বার : বৃহস্পতিবার

ঋতু : বর্ষাকাল

বিএনপি’র অবস্থান কর্মসূচিতে পুলিশ ও আওয়ামী সন্ত্রাসীদের যৌথ অ্যাকশন

বিএনপি’র অবস্থান কর্মসূচিতে পুলিশ ও আওয়ামী সন্ত্রাসীদের যৌথ অ্যাকশন


পুলিশ এবং আওয়ামী সন্ত্রাসীদের যৌথ আক্রমণ থেকে রেহাই পাননি প্রবীণ রাজনীতিক গয়েশ্বর চন্দ্র

পুলিশ এবং আওয়ামী সন্ত্রাসীদের যৌথ আক্রমণ থেকে রেহাই পাননি প্রবীণ রাজনীতিক গয়েশ্বর চন্দ্র

নিজস্ব প্রতিবেদক

সব জায়গায় বিএনপি’র অবস্থান কর্মসূচিতে অ্যাকশনে পুলিশ। লাঠিসোটা নিয়ে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরাও যোগ দেয় পুলিশের সাথে। পুলিশ ও আওয়ামী সন্ত্রাসীদের সহিংসতায় রাজধানীর চারটি প্রবেশমুখেই অবস্থান কর্মসূচিতে বিএনপি’র অনেকে নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য প্রবীণ রাজনীতিক বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ও পুলিশ এবং আওয়ামী সন্ত্রাসীদের যৌথ আক্রমণ থেকে রেহাই পাননি। লাঠির আঘাতে তাঁর মাথা ফেটে রক্ত ঝড়তে দেখা গেছে। এই অবস্থায় তাঁকে আটক করে নিয়ে যায় পুলিশ। এছাড়া ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি’র আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমানসহ শতাধিক নেতাকর্মীকে আটকের খবর পাওয়া গেছে।

শুক্রবারের মহাসমাবেশের জনসমুদ্রে বিএনপি মহাসচিব পরবর্তী কর্মসূচি হিসাবে শনিবার সকাল ১১ টা থেকে বিকাল চারটা পর্যন্ত রাজধানীর চারটি প্রবেশমুখে অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণা করেছিলেন। ঘোষিত এই কর্মসূচির অংশ হিসাবেই সকাল থেকে বিএনপি’ নেতাকর্মীরা ধোলাইখাল, উত্তরা, মাতুয়াইল এবং গাবতলিসহ বিভিন্ন পয়েন্টে জড়ো হতে চাইলে পুলিশ বাধা দেয়।

পুরান ঢাকার নয়াবাজারে কোতোয়ালি থানা বিএনপি’র নেতাকর্মীরা জড়ো হওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ ও আওয়ামী সন্ত্রাসীরা যৌথ হামলা চালায়। পুলিশ ও আওয়ামী লীগের যৌথ হামলা থেকে বাঁচার জন্য বিএনপি নেতাকর্মীরা পাল্টা ইটপাটকেল নিক্ষেপের চেষ্টা করতে দেখা যায়। এতে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

আমাদের প্রতিনিধি সরেজমিনে গিয়ে দেখতে পান, শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ধোলাইখালে পুলিশের বাধার পর বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। সংঘর্ষে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় রক্তাক্ত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে পুলিশ তাকে আহত অবস্থায় আটক করে নিয়ে যায়। এসময় তার মাথা থেকে রক্ত ঝরতে দেখা গেছে।

গাবতলিতেও বিএনপির অবস্থান কর্মসূচিতে মারমুখী অ্যাকশনে নামে পুলিশ। সেখান থেকে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমানসহ বেশ কয়েকজনকে আটক করে নিয়ে যাওয়া হয়।

উত্তরায় জড়ো হওয়া নেতাকর্মীদেরকে ধাওয়া দিয়েছে পুলিশ। উত্তরার বিএনএস সেন্টারের সামনে বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর পুলিশ টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে। এসময় দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

ওদিকে বেলা ১১টার দিকে যাত্রাবাড়ীর মাতুয়াইলে সড়কে অবস্থান নিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীরা বিভিন্ন শ্লোগান দিতে শুরু করলে অ্যাকশনে যায় পুলিশ। লাঠিচার্জ ও কাঁদানে গ্যাস ছুড়ে অবস্থান কর্মসূচি পণ্ড করে দেওয়ার চেষ্টা চালায় পুলিশ। এসময় বিএনপি নেতাকর্মীরা পুলিশের হামলা মোকাবিলা করেই অবস্থান কর্মসূচি পালনের চেষ্টা চালাতে দেখা যায়।

উল্লেখ্য, সকাল ৭টার পর থেকেই রাজধানীর বিভিন্ন প্রবেশপথে কঠোর অবস্থান নেয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যরা। পাশাপাশি লাঠিসোটা হাতে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের সন্ত্রাসীদেরও অবস্থান নিতে দেখা যায়। পুলিশ ও আওয়ামী সন্ত্রাসীদের যৌথ হামলা চালানো হয় প্রতিটি পয়েন্টে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category