আজ ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সময় : সকাল ৭:৩৬

বার : সোমবার

ঋতু : বর্ষাকাল

নাইডু-নীতিশের দিকে তাকিয়ে মোদি ,‘বিপদে’ বিজেপি।

ভারতের লোকসভা নির্বাচনে ক্ষমতাসীন বিজেপির একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ। এ কারণে জোটের দিকেই তাকিয়ে থাকতে হবে বিজেপি নেতা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে। আর এ কারণে জোটের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নেতা হয়ে উঠেছেন তেলেগু দেশাম পার্টির (টিডিপি) চন্দ্রবাবু নাইডু ও জনতা দল ইউনাইটেডে বা জেডির (ইউ) নীতিশ কুমার।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বলছে, জনতা দল ইউনাইটেডে বা জেডির (ইউ) নীতিশ কুমার বিজেপির এনডিএ জোটে এসেছেন বেশিদিন হয়নি। তেলেগু দাশাম পার্টির (টিডিপি) চন্দ্রবাবু নাইডুও এই জোটে আছেন।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ১৫০টি আসনে জিতেছে এনডিএ। আর ৮০টি আসনে জিতেছে ইন্ডিয়া। চন্দ্রবাবু নাইডুর দল টিডিপি জিততে চলেছে ১৬টি আসনে। এর সবগুলোই অন্ধ্রপ্রদেশে। বিহারে ১৪টি আসনে জিততে চলেছে নীতিশ কুমারের দল জেডি (ইউ)। জোটের মধ্যে থাকলে এ দুজনে মিলে মোদিকে দিতে চলেছেন ৩০টি আসন। এর মাধ্যমে সরকার গঠন সহজ হবে তাদের। এই সংখ্যা যদি বড় রকমের হেরফের না হয় মোদিই ক্ষমতায় যেতে পারেন। এ কারণে এই সময়ের সবচেয়ে আলোচিত নেতা হয়ে উঠেছেন এ দুজন।

তবে, এর মধ্যে নীতিশকে নিয়ে একটু ভয়ে থাকতে পারেন মোদি। কেননা গিরগিটির রঙ বদল করার মতোই জোট বদল করেই যাচ্ছেন তিনি। ২০২৪ সালে এনডিএ জোট থেকে বেরিয়ে একা নির্বাচন করেন তিনি। এরপর ২০১৫ সালে লালু যাদবের সঙ্গে মিলে জোট করেন।

দুই বছর না যেতেই এনডিএ জোটে যুক্ত হন নীতিশ। এরপর ২০২২ সালে আবারও জোট থেকে বেরিয়ে যান তিনি। এ বছর আবার যুক্ত হলেন। এবার তিনি কি জোটে থাকবেন? এটি এখন কোটি টাকার প্রশ্ন।

৫৪৩টি আসনের মধ্যে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে হলে দরকার ২৭২টি। এ কারণে জোটের দিকেই তাকিয়ে থাকতে হবে বিজেপি নেতা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে। এবার তাই বিজেপির নেতৃত্বে গঠিত এনডিএ জোটের বৈঠক ডেকেছেন বিজেপির প্রেসিডেন্ট জেপি নাড্ডা।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি বলছে, বুধবার বৈঠকের ডাক দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদি। এতে চন্দ্রবাবু নাইডুর টিডিপি ও নীতিশ কুমারের জনতা দল ইউনাইটেড উপস্থিত থাকবে বলে জানা গেছে। এর আগে বিজেপিও নিজেদের মধ্যে বৈঠক করবে।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ১৩৫টি আসনে জিতেছে এনডিএ। আর ৬৫টি আসনে জিতেছে ইন্ডিয়া। বুধবার বৈঠক ডেকেছে ইন্ডিয়া জোটও।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি বলছে, বিজেপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলে জোট বড় করে সরকার গঠনের সুযোগ থাকবে ইন্ডিয়া জোটের। এরই মধ্যে উত্তর প্রদেশে তাদের জয়জয়কার। এদিকে পশ্চিমবঙ্গেও বিজেপি পিছিয়ে আছে ইন্ডিয়া জোটের তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে।

মহারাষ্ট্রে শিব সেনা ও ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টির মধ্যে লড়াই চলছে। বিহারে এনডিএ জোটের নেতা নীতিশ কুমারকে নিজেদের জোটে পেতে চাইবে কংগ্রেস। এ ছাড়া জোটের বাইরে থাকা বিভিন্ন দলকেও ইন্ডিয়ার দিকে টানার চেষ্টা করছেন কংগ্রেস সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়গে।

এ তালিকায় রয়েছেন একনাথ শিন্ডে ও উদ্ভব ঠাকরেও।

ভোটের মাঠে কংগ্রেস ২০১৯ সালের চেয়ে বেশ এগিয়েছে। হেরে যাওয়া অনেক আসন ফিরে পেয়েছে তারা। বিশ্লেষকেরা বলছেন, ইন্ডিয়া জোটের কারণেই কংগ্রেস এবার অনেক এগিয়ে গেছে। এখন মোদির জোটে কোনো ধরনের ফাটল দেখা দিলে সুযোগ রয়েছে ইন্ডিয়া জোটের। তারা যেতে পারে ক্ষমতায়। তবে এখনো চূড়ান্ত ফল প্রকাশ বাকি।

এরই মধ্যে যে ফল প্রকাশ করা হচ্ছে, তাতে বিজেপির জোট এনডিএ বেশ এগিয়েই রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category